ধারাবাহিক উপন্যাস — ‘তারাদের ঘরবাড়ি’ ।। অলোকপর্ণা ।। ৬ষ্ঠ পর্ব

                                                            ৬   মাঝরাতে ঘুম ভেঙে যায় ইন্দিরার। একটু ধাতস্থ হওয়ার পর সে বোঝে সেলফোনটা বাজছে। অন্ধকার হাতড়িয়ে ফোন খুঁজে পেলে ইন্দিরা দেখে জ্বল জ্বল করছে …

ধারাবাহিক উপন্যাস — ‘তারাদের ঘরবাড়ি’ । অলোকপর্ণা । পঞ্চম পর্ব

৫.   আজ ট্রেনিং এর প্রথম দিন। সকাল সাতটা নাগাদ চুপিচুপি অ্যাপার্টমেন্ট ছেড়ে বেরিয়ে পড়ল ইন্দিরা। বাইরে ঠান্ডা হাওয়া সুপ্রভাত জানিয়ে যাচ্ছে সবাইকে। রাস্তার পাশে ছোটো ছোটো দোকানে ব্রেকফাস্ট তৈরি হচ্ছে, ইডলি, দোসা, বড়া, পোলাউ আর পোহা। প্লাস্টিকের চেয়ার টেবিলে তাই খেয়ে চলে যাচ্ছে মানুষেরা। ইন্দিরা একটা দোকানে এসে বসে। ভাষাগত সমস্যা পার হয়ে একটু …

তারাদের ঘরবাড়ি – অলোকপর্ণা ।। ধারাবাহিক উপন্যাস । চতুর্থ পর্ব

৪ ঘড়ির কাঁটার বিপরীতে উঠে গেছে পাহাড়ি রাস্তাটা। ইন্দিরা দাঁড়িয়ে আছে। ধূসর কুয়াশায় সামনের কিছুই দেখা যাচ্ছে না। ইন্দিরা তবু জানে, কুয়াশায় এক দল মানুষ তার আগে আগে এই পথ বেয়ে উপরে উঠছে,- সে একা নয়। কিভাবে এই মানুষগুলোর কথা সে জানতে পারল, ইন্দিরা জানে না। বিনা বাক্যব্যায়ে আন্দাজে সে তাদের পিছু পিছু উপরে উঠতে …

এক যে ছিল বরই ফাক্কন-স্বাদ ।। রাফসান গালিব

আম্মা আমারে দৌড়াইতেছেন, আমি দৌড়তেছি সামনে এলপাথাড়ি। পিছে পোলাপাইনের হৈ হল্লা। পোলাপাইন বলতে ছোট বড় সমবয়সী খালাতো ভাই-মামা আর নানুবাড়ির আশেপাশের অনাত্মীয় খেলার সাথীগণ। খালা মামীরা মা-ব্যাটার ইঁদুর বিড়াল দৌড় দেখে হাসতে হাসতে পিছন থেকে ডাক পারতেছিল, ও সাজু, আরে পুয়াগো দুখ ফাইয়ে ত! ( ও সাজু, ছেলেটা ব্যথা পেয়েছে তো!) সাজু আমার মায়ের নাম, …

তারাদের ঘরবাড়ি ।। ধারাবাহিক উপন্যাস – তৃতীয় পর্ব ।। অলোকপর্ণা

“গুড মর্নিং!”, রুবাঈ এসে বসে ইন্দিরার পাশে। “গুড মর্নিং”, অল্প হাসে ইন্দিরা। “পেলে?” “কি?” “ডোমেন?” “মানে?” “মানে আমরা কে কোন বিষয়ে ট্রেনিং পাবো সেটা আজকে ঠিক করা হচ্ছে” “তুমি পেয়েছো?” “না, মেইল আসবে একটা, ওতেই লেখা থাকবে” “কি ভাবে ডোমেন ঠিক করছে এরা?” “কে জানে, যারা পেয়েছে তারা কেউই বলতে পারল না” “আচ্ছা, ডোমেন ঠিক …

তারাদের ঘরবাড়ি ।। ধারাবাহিক উপন্যাস – দ্বিতীয় পর্ব ।। অলোকপর্ণা

২ সিঁড়ির ধাপে বসে জনৈক মঞ্জুনাথের জন্য অপেক্ষা করছে ইন্দিরা। সামনেই একটা বহুতল উঠে গিয়েছে আকাশ পর্যন্ত। তার বিশ থেকে ত্রিশ তল জুড়ে রয়েছে এক বিরাট বিজ্ঞাপনী হোর্ডিং। সেই হোর্ডিঙে সদ্য দাঁড়াতে শিখে একটি শিশু আকাশের দিকে তাকিয়ে আছে। শিশুটির পায়ের তলায় দক্ষিণী ভাষায় কিছু একটা লেখা। ইন্দিরা আন্দাজ করে, লেখাটায় তাকে উড়তে শেখানো হচ্ছে। …

মৃত্যুর দুয়ারে রবীন্দ্রনাথ ।। আবদুল্লাহ আল-হারুন

ইউরোপে মৃত্যুপথযাত্রীদের শেষ সময়ে সঙ্গ দেওয়ার সংগঠন হজপিস। হজপিস একটা আন্দোলনও। লেখককে প্রথম বাঙালি হজপিসকর্মী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া যায়। শতাধিক মৃত্যুসঙ্গের অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে ‘মৃত্যু’ হয়ে উঠেছে যার প্রিয় বিষয়। অনুবাদকর্মের পাশাপাশি তিনি মৃত্যু বিষয়ক লেখালিখি করে থাকেন। ‘জীবন মরণের সীমানা ছাড়ায়ে’, ‘অঙ্গবিহীন আলিঙ্গন’ এবং ‘মৃত্যু: একটি দার্শনিক জিজ্ঞাসা’র পর চলতি বইমেলায় ‘ঐতিহ্য’ থেকে …

তারাদের ঘরবাড়ি ।। প্রথম পর্ব ।। অলোকপর্ণা

১. এরকম পুরোনো বাড়িতে আগে আসেনি ইন্দিরা। ভিতরে অন্ধকার পুষে চুপ করে বসে থাকা বাড়ি, দেওয়ালে আদর করে জমিয়ে রাখা শ্যাওলা। যেন কিছু দেখতে পাচ্ছে না এমনভাবে দেওয়ালে হাত রেখে রেখে এগোয় সে, একটু বাদে আলো আসে। ইন্দিরা বাড়িটার ছাদে এসে পৌঁছোয়। নীচু পাঁচিলের ছাদ, শিশুর মাথায় হাত রাখার মত পাঁচিলে হাত রেখে ঝুঁকে দেখে …

ভ্রমণ ।। মাহবুব ময়ূখ রিশাদ

একটা সময় ছিল যখন ভাবতাম গল্প লিখতেই বসলেই বুঝি লেখা হয়ে যায়, লিখেছিও অনেক। মোবাইলে, ক্লাসের ফাঁকে। যেদিন আখতারুজ্জামান ইলিয়াস এবং শহীদুল জহির পাঠ করে ফেললাম, সেদিন থেকে গল্প নিয়ে চিন্তা-ভাবনা অনেকাংশে বদলে গেল। নিজের বইয়ের ভুলগুলো বড় প্রকট হয়ে চোখের সামনে দৃশ্যমান হলো। সময়ে শিখছি, জানছি। এবারের পান্ডুলিপি সময় নিয়ে করা। পত্রিকায় কিছু গল্প …

সাখাওয়াত টিপুর মৃত্যু ও মার্কেজের চিঠি ।। নূর সিদ্দিকী

পাণ্ডুলিপি থেকে গল্প পাণ্ডুলিপি : মেয়েটির পায়ে নূপুর ছিলো প্রকাশক : চৈতন্য, অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০১৭ প্রচ্ছদ: রাজীব দত্ত সাখাওয়াত টিপুর মৃত্যু ও মার্কেজের চিঠি নূর সিদ্দিকী হ্যালো আব্দুস সালেক একটা সিএনজি বা অ্যাম্বুলেন্স যা পাও তা নিয়াই তাড়াতাড়ি আমার বাসায় আসো। আমারে হাসপাতালে নিয়া যাইতে হইবো। এরপর আর বিস্তারিত শোনার অপেক্ষা না করেই আমি ফোনটা …