পাঁচটি কবিতা । তাহিতি ফারজানা


ভালোবাসা, দুরারোগ্য ব্যাধি এক!


এসেছো—
যেভাবে আসে বন্য হাতি লোকালয়ে
ভাঙচুর আনন্দে এসেছো
ভালোবাসার মতো দুরারোগ্য ব্যাধি এক!

প্রস্তুতি ছিল না আমার
হৃদয়ে এতো ভার বহনের!
তবু তোমাকে গ্রহণ করেছি—
চোখে ঘুম নেমে আসা প্রশান্তির মতো।
সিয়াম সাধনার পবিত্রতার মতো।
স্বচ্ছ জলের নিচে আনমনে পড়ে থাকা
শ্বেতপাথরের সৌন্দর্যের মতো।

তোমার উপস্থিতি এতো গভীর—
মারিয়ানা ট্রেঞ্চ যার সমার্থক হলে হতে পারে!
তবু সাহস করে সামনে দাঁড়াবো।

তোমার চোখে এক অদ্ভুত বিষক্রিয়া ঘটাবে
আমার চঞ্চল চুমুগুলো,
এরপর থেকে— আমি ছাড়া তোমার
আর কোনো দৃশ্য থাকবে না!


ফুটে থেকো সুবাসিত


তুমি ফিরিয়ে দিয়েছ বলে
আর কোথাও ফিরিনি আমি
অভিমান, ক্ষোভ জ্বেলে
ক্ষুধার শহরে কুড়িয়েছি নিজেকে।

তুমি দূরে চলে গেছো বলে
দূরত্বকে মেনেছি সংবিধান
তার শিরদাঁড়া বেয়ে
আর পৌঁছাতে চাইনি কোথাও

তবু সময়ের অবিনয়ী শিসে
মৃত্যু-কালো রাত আসে,
আঘাত জাগে হৃদয়ের কানে—
ক্ষত পুষে রাখি সন্তর্পণে।

যদি খোঁজ পাও, তাকে সারাতে হবে না
ফুটে থেকো সুবাসিত—
আমার ক্ষতের উপরে
তুমি ফুল হয়ে ফুটে থেকো!


অবশেষ


এতো কথা থেকে গেল,
থেকে যায় বিহ্বলতা
আমাদের না থাকা বেয়ে
কিছু লতা-গুল্ম বেড়ে ওঠে—
যেন কোটিবর্ষী স্যাঁতস্যাঁতে দেয়াল
দাঁড়িয়ে থাকা দৃশ্য-অদৃশ্যের মাঝে।

বহু কথা থেকে যাবে
স্মৃতির উঠানে অবশিষ্ট হাড়গোড় হয়ে
কী এসে যায়!

মানুষ দূরতম দ্বীপ
কাছে এসেও থেকে যায় অজ্ঞাত, পরস্পর।
মানুষ দুর্বোধ্য ভাষা
দিন যায়, বাড়ে ক্রমশ বোঝাপড়ার ভান!


দ্বিধা


তুমি যেন কাকে ডাকো
আমাকে ডাকার ছুতায়!
পিছু ফিরি দ্বিধায়, যেন পেয়েছি ভুল সংকেত।
আমার কি ছিল ফেরার কথা
তোমার প্রতীক্ষার ভেতর!

কোন পাখি শিস খুঁজে যায়
উড়ার আকাঙ্ক্ষা নিয়ে
তোমার ঠোঁটের সূর্যাস্ত মাখা ঢেউয়ে
আটকা পড়ে সুবিশাল জাহাজবহর
আমি যদি হই ঢেউ ভাঙা অভ্যাস কোনো
তুমি কি বদলে ফেলবে অনায়াসে!

তুমি যেন সমর্পিত হও কার কাছে!
তেমন উষ্ণতা, তেমন দিগ্বিজয়ী সুঘ্রাণের মতো
আমার কি জ্বলে উঠবার কথা ছিল
তোমার আকাঙ্ক্ষার ভেতর! 


চাতুর্য


সম্পর্কের ছাই, অবশেষ
গোপন সমাধি পড়ে থাক।
মৃত আনন্দের পাশে
কিছু মোমবাতি জ্বেলে রাখো মিছেমিছি।
ছাইকে পোড়াবে আর
তেমন আগুন কই!

ভালোবাসায় চাতুর্য মিশে
তৈরি হয়েছে যে আশ্চর্য তরল
তা অনিঃশেষ চুমুকে তুলে নাও
যদি পেয়ে যাও অমরত্ব!

শ্বাস নাও অনিশ্চয়তায়,
হতে পারে—
তুমিও কারো দাবার গুটি
দুর্বলতম শেষ চালের অপেক্ষা!


তাহিতি ফারজানা

জন্ম ১৯৯৩ সালের ১৬ আগস্ট, মৌলভীবাজার জেলায়। স্কুল জীবন থেকে লেখালেখির শুরু।
১ম কবিতাগ্রন্থ- আদ্যোপান্ত হৃদয় যাপন -প্রকাশ কাল ২০১৫ সাল।
২য় কবিতাগ্রন্থ- ব্যথা, ক্ষয়িষ্ণু হও -প্রকাশ কাল ২০২৩ সাল।
বর্তমানে কর্মরত সোনালী ব্যাংক পিএলসি তে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Discover more from

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading